পাইকগাছায় স্ত্রী কর্তৃক স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক ও নারী নির্যাতন মামলা

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি।। পাইকগাছায় যৌতুকের দাবী ও নারী নির্যাতনের ঘটনায় স্ত্রী ফরিদা কর্তৃক স্বামী মোঃ জাকিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে পাইকগাছা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা হয়েছে।
মামলা নং সিআর ৯৪৮/২১। বিজ্ঞ আদালত আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা দিয়েছেন। আসামী জাকিরুল ইসলাম পলাতক রয়েছে। অপর দুই আসামী জাকিরুলের পিতা মোঃ করিম গাজী ও মাতা মোছাঃ মনোয়ারা বেগম জামিনে রয়েছে। মামলা ও বাদীর সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তকিয়া গ্রামের মোঃ করিম গাজীর পুত্র মোঃ জাকিরুল ইসলাম গদাইপুর গ্রামের মোঃ ফজলে করিম শেখের কন্যা মোছাঃ ফরিদা বেগমের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে।

 

 

২০২০ সালের ১ডিসেম্বর মৌলভীর মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা দেনমোহর ধার্য অভিভাবকদের সম্মতিতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় এবং ২০২০ সালের ৬ ডিসেম্বর ৪৪৯৯নং এফিডেভিট মূলে ঘোষনা প্রদান করে। স্বামী গৃহ সংসার শুরু করার কিছু দিন পর শ্বশুর মোঃ করিম গাজী ও শ্বাশুড়ী মনোয়ারা বেগম এর প্রচারনায় জাকিরুল স্ত্রীর নিকট ব্যবসার জন্য ১ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে।

 

 

 

যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় স্ত্রী ফরিদাকে মানসিক ও শারীরিক ভাবে নির্যাতন শুরু করে এবং খাওয়া পরা বন্ধ করে দেয়। সর্বশেষ ২০২১ সালের ২৩ ডিসেম্বর শ্বশুর শ্বাশুড়ীর প্রচারনায় স্বামী জাকিরুল ফরিদাকে মারপিট শুরু করলে উপায়ান্ত না পেয়ে ্ফরিদা তার পিতা মোঃ ফজলে করিম শেখকে আসামীদের বাড়ীতে ডেকে এনে ১ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে। যৌতুক দিতে না পারায় স্ত্রী ফরিদাকে গালিগালাজ করে তার সঙ্গে সংসার করবেনা বলে বাড়ী থেকে তাড়াইয়া দেয়। বর্তমান ফরিদা তার পিত্রালয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

 

 

এ ঘটনায় স্ত্রী ফরিদা বেগম স্বামী জাকিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে পাইকগাছা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ও ৪ ধারায় মামলা করেছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নাসির হোসেন জানান, গ্রেফতারী পরোয়ানা পাওয়ার পর আসামীকে ধরার জন্য তার বাড়ীতে একাধিকবার গিয়েছি, তবে তাকে বাড়ীতে পাওয়া যায়নি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে সে ঢাকায় অবস্ধসঢ়;ান করছে। আসামীকে গ্রেফতারের জন্য সব রকম প্রচেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

 

 

 

এ বিষয় থানার ওসি মোঃ জিয়াউর রহমান জানান, আসামীকে গ্রেফতার করার প্রয়োজনীয় ব্যবস গ্রহণ করা হবে।

SHARE