আজিজুর রহমান, কেশবপুর (যশোর):
কেশবপুরে ছাগলে গাছের পাতা খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় স্কুল পড়ুয়া ছাত্রীসহ ৪ জন আহত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহতদের মধ্যে ১ জনকে উদ্ধার করে কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়েছিল।বাকি আহতরা স্থানীয় চিকিৎসা নিয়েছে।

 

এ ঘটনায় যষ্টি দাস বাদি হয়ে গত ১৯ মে ৭জনের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে বলে তার স্বামী শংকর দাস জানান।

 

থানার লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সুজাপুর গ্রামের দুলাল দাসের ছেলে শংকর দাসের একটি ছাগল গত ১৯ মে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় একই গ্রামের রবিন দাসের বাড়িতে গেলে ছাগলটিকে মারপিট করার প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।

 

এ সময় কথাকাটাকাটির একপর্যয়ে তরুন দাস,তার পিতা রবিন দাস,মৃত শিবপদ দাসের স্ত্রী রিপা দাস,মৃত গোপাল দাসের ছেলে রণজিৎ দাস,গুরুপদ দাস,ও তার স্ত্রী শিলা দাস,অজিত দাসের ছেলে অর্জুন দাস মিলে বাঁশের লাঠি দিয়ে শংকর দাস(৩৫)ও তার স্ত্রী যষ্টি দাস (২৮),সুজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ ৩ম স্কুল পড়ুয়া মেয়ে মাধীরি দাস(১২)কে মারপিট করাসহ তার ছোট মেয়ে অঙ্গিতা দাস(২)কে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় বলে যষ্টি দাস জানান।

 

আহত শংকর দাসের অবস্থা আশ্কাজনক হওয়ায় ২৮ মে শনিবার ঢাকার একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে বলে শংকর দাসের পিতা দুলাল দাস জানান। এব্যাপারে রবিন দাসের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান,আমরা তাদেরকে মারপিট করনি।

SHARE