উঠতি বয়সীদের ‘অসুস্থ’ ঈদ বিনোদন মহাসড়কে!

অনলাইন ডেস্ক : ঈদ উদযাপন করতে এক শ্রেণির কিশোরেরা ট্রাক এবং পিকআপ ভ্যানে করে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে সড়ক থেকে মহাসড়কে।

 

 

মঙ্গলবার (৩ মে) ঈদুল ফিতরের দিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত অসংখ্য ট্রাক আর পিকআপ ভ্যানে গাদাগাদি করে কিশোরদের ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। উচ্চস্বরে গান-বাজনা বাজানোর তালে উদ্দাম নৃত্য, লাফঝাঁপ আর চিৎকার-চেঁচামেচি চলতে থাকে চলন্ত গাড়িতে। কিশোর ও সদ্য কৈশোর পেরোনো এ তরুণদের এমন ঈদ বিনোদনকে ‘অসুস্থ বিনোদন’ বলে উল্লেখ করছে সচেতন মহল। ঈদ বিনোদনের নামে চলন্ত খোলা ট্রাক এবং পিকআপ ভ্যানে নাচানাচির ফলে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় কোনো দুর্ঘটনা- মহাসড়কে চলাচলকারী পরিবহন চালকেরা এমনটাই জানান। তারা এভাবে ঘুরে বেড়ানো বন্ধের দাবি জানান।

 

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরেই দেখা গেছে ঈদের দিন থেকে শুরু করে দুই/তিন দিন পর্যন্ত পদ্মাসেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক থেকে শুরু করে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত এক্সপ্রেসওয়েতে ট্রাক, পিকআপ ভ্যানে করে এক শ্রেণির কিশোর, তরুণেরা উল্লাস করে বেড়ায়। ট্রাকে জেনারেটর নিয়ে সাউন্ডবক্স বাজিয়ে নাচানাচি করে। চলন্ত গাড়িতে লাফালাফি করে তারা, যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। ঈদের পরদিন বুধবার (৪ মে) সকাল থেকেও এভাবে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে তরুণদের।

 

 

এক্সপ্রেসওয়ের পাঁচ্চর সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দারা জানান, ঈদের দিন নামাজের পর থেকে রাত পর্যন্ত উচ্চস্বরে গান-বাজনা বাজিয়ে ট্রাক নিয়ে সড়কে দাপিয়ে বেড়ায় কিশোররা। রাস্তাঘাটে মেয়েদের দেখলে বাজে মন্তব্য ও অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করে। অসভ্যতা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে।

 

 

মাইক্রোবাসচালক মো. আবু রায়হান বলেন, কিশোরদের ঈদ বিনোদনের নামে এভাবে ট্রাক নিয়ে গানবাজনা বাজিয়ে মহাসড়কে দাপিয়ে বেড়ানো দিন দিন বাড়ছে। যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এতে করে যে কোনো সময় দুর্ঘটনায় প্রাণহানিও ঘটতে পারে। তাছাড়া ট্রাকে নাচানাচির সঙ্গে মাদক সেবন করতেও দেখা গেছে অনেককে। এভাবে ঘুরে বেড়ানো বন্ধ করা জরুরি।

 

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয়  এক কলেজ শিক্ষক বলেন, শুধু মহাসড়কই নয়, গ্রামের সড়ক দিয়েও এ ‘ডিজে পার্টির দলের ট্রাক, পিকআপ ভ্যান ঘুরে বেড়াচ্ছে। এভাবে ঈদ বিনোদন এক ধরনের অসুস্থতা। এভাবে গাড়িতে করে হইহুল্লোড় করছে, ধুমপান করছে। অশ্লীল ভঙ্গিমা করে চেঁচামেচি করছে, যা নৈতিক অবক্ষয় ঘটাচ্ছে। এগুলো বন্ধে সামাজিকভাবেও এগিয়ে আসা উচিত। আর মহাসড়কে অবাধে ঘুরে বেড়ানো বন্ধে প্রশাসনের ব্যবস্থা গ্রহণ কাম্য। যে কোনো সময় দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে।

 

 

শিবচর হাইওয়ে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. বাকী বলেন, আমাদের হাইওয়ে পুলিশের চেকপোস্ট রয়েছে মহাসড়কে। ঈদের দিন যেসব ট্রাকে করে এভাবে ছেলেরা এসেছে, তাদের সাময়িক সময় আটকে রেখে মহাসড়ক ত্যাগ করতে পরামর্শ দেওয়া হয়। মহাসড়কে ট্রাক বা পিকআপ ভ্যানে লোকজন বহন করাই নিষিদ্ধ। ঈদের সময় অনেককে বিনোদনের নামে ট্রাক/পিকআপ ভ্যান নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে। আমরা যেখানেই তাদের পেয়েছি, সেখান থেকেই ফিরিয়ে দিয়েছি। মহাসড়কে আমাদের টহল অব্যাহত রয়েছে।

SHARE